ত্বকের যত্নে কমলার রস ও খোসার ব্যবহার

ত্বকের যত্নে কমলা

ত্বকের যত্নে কমলার রস ও খোসার ব্যবহার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ কমলার রস বা খোসার গুঁড়ো ব্যবহারের মাধ্যমে শুষ্ক ও তৈলাক্ত ত্বকের হারানো উজ্জ্বলতা ফিরে পেতে পারেন। আসুন আমরা ত্বকের যত্নে কমলার রস বা খোসার গুঁড়োর ব্যবহার বিধি বিষয়ক রূপচর্চার টিপস্‌টি জেনে নেই।

ত্বকের যত্নে কমলার রস বা খোসার গুঁড়োর ব্যবহারঃ

শুষ্ক ও তৈলাক্ত ত্বক শীত চলে যাবার এই সময়টায় প্রাণহীন হয়ে পড়ে। তাই শুষ্ক ও

তৈলাক্ত উভয় ত্বকের বিশেষ পরিচর্যার প্রয়োজন। এই সময় যে কোন ত্বকে একটা কালচে আবরণ দেখা দেয়। এই আবরণ দূরীভূত করার জন্য কমলা ফলের রস ও খোঁসার গুঁড়া রূপচর্চার উপকরণ হিসাবে সবচেয়ে বেশি ব্যবহারিত হয়ে আসছে।

ত্বকের তৈলাক্ত ভাব দূর করে ত্বকের স্বাভাবিক উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনার জন্য কমলার খোঁসার গুণগত মান অকল্পনীয়। এখন কমলার মৌসুম চলছে। তাই এই সহজলভ্য কমলার রস বা কমলার খোঁসা ব্যবহারিত হতে পারে আপনার দৈনন্দিন রূপচর্চার উপকরণ হিসাবে। এই কমলার খোঁসায় প্রচুর পরিমাণে এ্যাসকবিক এসিড রয়েছে। তাই এই কমলার খোসা সরাসরি ত্বকে ব্যবহার করা চলবে না। এখন আপনার ত্বকের ধরণ অনুযায়ী কমলার খোসা বাটা বা গুঁড়ো এর সঙ্গে কী কী মিশিয়ে ত্বকে কিভাবে লাগাবেন তার জন্য উক্ত ব্যবহার বিধি জেনে নিন।

ত্বকে ধরণ অনুযায়ী ব্যবহার বিধিঃ

নিমোক্ত ত্বকের ধরণ অনুযায়ী কমলার রস বা খোসা এর ব্যবহার উপকরণ বিধি অনুসরণ করে ব্যবহার করুন।

সাধারণ ত্বকঃ

সাধারণ ত্বকের জন্য আধা চা-চামচ কমলার খোসা বাটা বা গুঁড়ো এর সঙ্গে ২ চা-চামচ তরল দুধ মিশিয়ে নিন। যদি তরল দুধের পরিবর্তে গুঁড়ো দুধ ব্যবহার করতে চান তবে গুঁড়ো দুধ আধা চা-চামচ পরিমাণ ব্যবহার করুন। আরও এর সঙ্গে পৌনে ১ চা-চামচ মধু এবং ১ চা-চামচ লাল আটা মিশিয়ে ত্বকে ব্যবহার করুন।

ব্যবহার বিধিঃ

এই মিশ্রিণটি সপ্তাহে এক দিন ব্যবহার করুন এবং ১৫ থেকে ২০ মিনিট ত্বকে লাগিয়ে রেখে ধুঁয়ে ফেলুন। এর বেশি সময় নয়।

শুষ্ক ত্বকঃ

শুষ্ক ত্বকের জন্য আধা চা-চামচ কমলার খোসা বাটা বা গুঁড়ো এর সঙ্গে তরল দুধের পরিবর্তে দুধের সর ব্যবহার করুন।

ব্যবহার বিধিঃ

সাধারণ ত্বকের ন্যায় শুষ্ক ত্বকেও একই ব্যবহার বিধি অনুসরণ করে ব্যবহার করুন। শুধুমাত্র শুষ্ক ত্বকের জন্য সপ্তাহে দুই দিন ব্যবহার করুন।

তৈলাক্ত ত্বকঃ

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য আধা চা-চামচ কমলার খোসা বাটা বা গুঁড়ো এর সঙ্গে ১ চা-চামচ টকদই এবং ১ চা-চামচ আটা মিশিয়ে ত্বকে ব্যবহার করুন।

ব্যবহার বিধিঃ

সাধারণ ত্বকের ব্যবহার বিধি অনুসরণ করে ব্যবহার করুন।

ত্বকের মরা চামড়া তোলার বিধিঃ

ত্বকের মরা চামড়া তোলার জন্য ১ চা-চামচ কমলার খোসা বাটা বা গুঁড়ো এর সঙ্গে ২ চা-চামচ চালের গুঁড়ো, ২ চা-চামচ তরল দুধ এবং আধা চা-চামচ মধু মিশিয়ে স্ক্র্যাবার হিসেবে ব্যবহার করে ত্বকের মরা চামড়া তুলুন। আপনি গোসলের পূর্বে যেকোন ত্বকের মরা চামড়া তোলার জন্য এই স্ক্র্যাবটি সবচেয়ে কার্যকরী। এ ছাড়াও যাদের ত্বক খুব বেশি তৈলাক্তযুক্ত তারা সপ্তাহে ২ দিন কমলার রসে পানি মিশিয়ে তুলা দিয়ে পুরো ত্বকে লাগিয়ে ১০ মিনিট অপেক্ষা করে ধুঁয়ে ফেলুন। এই ব্যবহার বিধি ত্বকের কালচে পোঁড়া দাগও তুলতে সাহায্য করে।

সংরক্ষণঃ

সারা বছর রূপচর্চার উপকরণ হিসেবে কমলার খোসা ব্যবহার করতে চান। সে জন্য কমলা থেকে খোসা ছাড়িয়ে রোদে শুঁকিয়ে গুঁড়ো করে নিন। এখন কমলার খোসার গুঁড়ো এমন পাত্রে সংরক্ষণ করুন যাতে বাতাস ঢুকতে না পারে। সর্তক থাকবেন- যাতে কমলার খোসার গুঁড়ায় কোনোভাবে যেন পানির না লাগে। তাহলে গুঁড়োর গুণগত মান নষ্ট হয়ে যাবে। বিশেষ করে এই ভাবে কমলার খোসার গুঁড়ো প্রায় ৫ থেকে ৬ মাস পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যাবে।

“ধন্যবাদ”

Be the first to comment

Leave a Reply