যোগাসন অনুশীলনের নিয়মাবলী?

যোগাসন অনুশীলনের নিয়মাবলী

যোগ-আসন অভ্যাস করার পূর্বে কিছু নিয়মাবলী জানা আবশ্যক, তা না হলে বিভিন্ন প্রকার শারীরিক অসুবিধার সম্মুখীন হতে পারেন। যোগাসন অনুশীলনের মাধ্যমে শারীরিক গঠন, রোগ-প্রতিরোধ বৃদ্ধি এবং আধ্যাত্মিক অগ্রগতি অনিবার্য। তাই প্রত্যেক যোগাসন অনুশীলনীদের যোগ-অভ্যাস করার পূর্বে যোগাসন অনুশীলনের নিয়মাবলী জানতে হবে এবং তার পরে যোগ অভ্যাস শুরু করতে হবে।

যোগ-আসন অনুশীলনের নিয়মাবলীসমূহঃ

(১) সকল ধ্যানাসন সমূহ দীর্ঘক্ষণ ধরে অনায়াসে অভ্যাস করে যেতে পারেন এবং এতে কোন প্রকার শারীরিক অসুবিধা হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তবে ধ্যানাসন সমূহ ব্যতীত অন্য আসনাদি বা মুদ্রা সংসারী তথা গৃহী ব্যক্তির পক্ষে ৪৫ মিনিটের বেশি করা উচিত না। ধ্যানাসন সমূহ দীর্ঘক্ষণ ধরে অনুশীলন করলেও কোন প্রকার অপকার হবে না বরং উপকারই হবে।

(২) একটি আসন অনুশীলন করা শেষ হলে, শবাসন করার পর অপর আসন অভ্যাস করবেন। প্রতি আসন অভ্যাসের পরে ১৫ সেকেন্ড শবাসন করতে হবে।

(৩) ৫ থেকে ৮০ বছর বয়স্ক পুরুষ এবং মহিলাগণ যোগ-ব্যায়াম অভ্যাস করতে পারেন। তবে সয়স এবং স্ত্রী-পুরুষ ভেদে বিভিন্ন যোগ-আসনাদি অভ্যাস করতে হবে।

(৪) ৫ থেকে ১০ বছর পর্যায়ভুক্ত ছেলেমেয়েরা বয়স্ক ব্যক্তিদের তুলনায় অপেক্ষাকৃত কম সময় বা অর্ধ সময় পর্যন্ত এক-একটি যোগাসন অভ্যাস করবেন। বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে আসন অনুশীলনের সময়ও বাড়াতে হবে।

(৫) গৃহীদের পক্ষে কোন আসনেই এককালীন পাচঁ মিনিটের বেশি অবস্থান করা উচিত নয়; তবে ধ্যানাসনে দীর্ঘক্ষণ সময় ধরে অবস্থান করা যেতে পারে।

(৬) কম্বল বা পাতলা গদীর উপর যোগাসনসমূহ অনুশীলন করা সুবিধাজনক। ভূমির উপর কোন কিছু বিছিয়ে নিয়ে যোগাসনাদি অনুশীলন করতে হবে।

(৭) একমাত্র শীর্ষাসনের ঠিক পরেই শবাসন করা উচিত নয়।

(৮) যোগ-ব্যায়াম অনুশীলনের কোন নির্দিষ্ট সময় নেই, তবে সকালে অথবা সন্ধ্যায় আসনাদি অনুশীলন করা উচিত।

(৯) আসনাদি অনুশীলন সময়ে শ্বাস-প্রশ্বাস ক্রিয়া স্বাভাবিক রাখতে হবে। শ্বাস বন্ধ করে রাখা উচিত হবে না।

(১০) কৌপীন বা আঁট জাঙ্গিয়া (গেঞ্জীর) ভেতরে পরে ওপরে আণ্ডারওয়ার বা খাটো প্যান্ট পড়ে যোগাসনাদি করা চলতে পারে। মেয়েদের পক্ষে পাশ্চাত্য দেশীয় স্নানের পোশাক (Bathing costume) ব্যবহার করা সুবিধাজনক।

(১১) যোগাসন অভ্যাসের পূর্বে কিছুক্ষণ খালি হাতে ব্যায়াম (free hand exercise) করতে পারেন।

(১২) যোগমুদ্রা ব্যতীত অন্য কোন মুদ্রা ১৪ বছরের কম বয়স্ক ছেলেদের অনুশীলন করা উচিত নয়। মেয়েরা ঋতু প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পূর্বে কখনই যোগমুদ্রা ব্যতীত অন্য কোন মুদ্রা অনুশীলন করবেন না।

(১৩) পূর্ণ আহারের পর কোন যোগাসন অনুশীলন করা সঙ্গত নয়। তবে পূর্ণ আহারের পর বজ্রাসন অনুশীলন করা চলতে পারে। পূর্ণ আহারের ৪ ঘন্টা পরে অন্যান্য আসনাদি অনুশীলন করা চলতে পারে।

(১৪) একমাত্র ভোর-বেলা ব্যতীত অন্য কোন সময়ে খালি পেটে যোগাসনাদি অনুশীলন করা উচিত নয়। সামান্য কিছু খেয়ে নিয়ে আধাঘন্টা বা একঘন্টা পর যোগ-ব্যায়ামাদি অভ্যাস করতে পারেন।

(১৫) শিক্ষার্থীগণের প্রাথমিক পর্যায়ে প্রতিদিন ৫/৬ টির বেশি আসন বা মুদ্রা অনুশীলন করা উচিত হবে না। পরবর্তী পর্যায়ে কিছু কিছু আসনের সংখ্যা বাড়াতে পারেন।

(১৬) প্রাথমিক পর্যায়ে যোগাসনাদি অভ্যাস-কালে কিছু কিছু ভুল বা ত্রুটি হতে পারে তবে নির্দেশানুযায়ী নিয়মিত অভ্যাস করলে ভুল বা ত্রুটি সংশোধিত হবে।

(১৭) মেয়েরা ঋতুকালে ৪/৫ দিন কোন যোগ-ব্যায়াম করবেন না।

(১৮) ছেলে বা মেয়ে সকলেই প্রতি সপ্তাহে ৬ দিন যোগ-ব্যায়াম করবেন, ১ দিন বন্ধ রাখবেন।

(১৯) গর্ভবতী মেয়েরা গর্ভের সূচনা থেকে ৩ মাস অবধি যোগ-ব্যায়াম করতে পারেন; প্রসবান্তে ৩ মাস পরে পুনরায় যোগ-ব্যায়ম অভ্যাস করতে পারেন।

(২০) অনিদ্রা বা স্বপ্নদোষ থাকলে রাতে শোবার কিছু আগে গোমুখাসন অভ্যাস করলে সুফল পাওয়া যাবে। স্বাভাবিক পরিচ্ছদ পরেও ঐ সময়ে গোমুখাসন করা চলবে।

(২১) কোন আসনভঙ্গী শুদ্ধ করার অভিপ্রায়ে মুখ বিকৃত করা অনুচিত। মুখভাব স্বাভাবিক রেখে আসনাদি করা বিধেয়।

(২২) সকালে মলমুত্র ত্যাগের পরে আসনাদি অনুশীলন করা বিধেয়। পেটে বাযু জমলে মলমুত্র ত্যাগের পূর্বে অর্ধ-চন্দ্রাসন করা চলতে পারে।

(২৩) যোগ-ব্যায়ামকারীর পক্ষে নিষিদ্ধঃ প্রাতঃস্নান, উপবাস, বিশেষ শারীরিক কষ্টকর কাজ, দিনে একবার আহার বা অনাহার।

(২৪) কোন্‌ কোন্‌ শারীরিক অবস্থায় কি কি আসন নিষিদ্ধ তা নিচে উল্লেখ করা হলঃ

শারীরিক অবস্থা

১। রক্তচাপ অত্যন্ত বেশি হলে

২। পুরাতন সর্দি বা নাসারোগে

৩। কোষ্ঠবদ্ধতা, হার্নিয়া এবং এপেণ্ডিসাইটিস হলে

৪। প্লীহা বা যকৃৎ বৃদ্ধিতে

৫। কানপাকা, দৃষ্টিহীনতায় বা ক্ষীণতায়, রক্তের চাপ বৃদ্ধিতে বা হৃৎপিণ্ড দুর্বল হলে

নিষিদ্ধ আসনাদি

১। শবাসন ব্যতীত অন্য কোন আসন করা চলবে না।

২। সর্বাংগাসন নিষিদ্ধ।

৩। পশ্চিমোত্থাসন নিষিদ্ধ।

৪। ভুজংগাসন, শলভাসন, ধনুরাসন ও পশ্চিমোত্থাসন নিসিদ্ধ।

৫। শীর্ষাসন নিষিদ্ধ।

বিভিন্ন যোগাসন দেখতে=এখানে ক্লিক করুন=

 ধন্যবাদ” 

=বাংলা হাউ ডট কম=

((www.banglahow.com))